মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৫ অক্টোবর ২০২০

কমান্ড্যান্ট

মেজর জেনারেল শেখ পাশা হাবিব উদ্দিন, এসজিপি, বিএএমএস, এএফডব্লিউসি, পিএসসি গত ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে কমান্ড্যান্ট, বিওএফ গাজীপুর হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। মেজর জেনারেল পাশা ২০১৭ সালের ১৯ ফেব্রয়ারি তারিখে মেজর জেনারেল পদে পদোন্নতি লাভ করেন। বিওএফ যোগদানের পূর্বে তিনি বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীতে মহাপরিচালক হিসাবে দায়িত্বরত ছিলেন।

মেজর জেনারেল পাশা ১৯৬৭ সালের ২০ নভেম্বর তারিখে ফেনী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজে অধ্যয়ন শেষে তিনি ১৬ তম বিএমএ লং কোর্সে অংশগ্রহণ করে ১৯৮৭ সালের ২৬ জুন কমিশন প্রাপ্ত হন। কুমিল্লা বোর্ডে সম্মিলিত মেধাতালিকায় স্থানলাভের স্বীকৃতি স্বরুপ ১৯৮৫ সালে তাকে চ্যান্সেলরস এওয়ার্ডে ভূষিত করা হয় এবং বিএমএতে একাডেমিক বিষয়ে কোর্সে সর্বোত্তম ফলাফল এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিত বিএসসি (পাশ) পরীক্ষায় ১ম শ্রেণীতে ১ম হওয়ার স্বীকৃতিস্বরুপ তিনি ওসমানী স্বর্ণপদক লাভ করেন। কমিশনের পর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর আর্টিলারি কোরের ৮ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারিতে তিনি কর্মজীবন শুরু করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ থেকে মাস্টার্স ইন বিজনেজ এডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ইন ডিফেন্স স্টাডিজ (এমডিএস) ও মাস্টার্স ইন ওয়ার স্টাডিজ (এমডব্লিউএস) ডিগ্রি অর্জন করেন। এমবিএতে ফিন্যান্স এ মেজর করার অংশ হিসেবে তিনি গ্রীন্ডলেজ ব্যাংকে ইন্টার্নশীপ সম্পন্ন করেন। ঢাকার মিরপুর সেনানিবাসে অবস্থিত ডিফেন্স সার্র্ভিসেস কমান্ড এন্ড স্টাফ কলেজ হতে স্টাফ কোর্স এবং ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ হতে তিনি আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স সম্পন্ন করেন। তিনি পাকিস্তানের নওশেরা থেকে সার্ভে ও লোকেটিং বিষয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। মেজর জেনারেল পাশা ২০০৬ সালে ন্যাভাল পোষ্ট গ্রাজুয়েট স্কুল, ক্যালিফোর্নিয়া, ইউএসএ-তে ‘সিভিল মিলিটারি রেসপন্স টু টেরোরিজম’ শীর্ষক কোর্স সম্পন্ন করেন। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের ডিফেন্স একাডেমি পরিচালিত ‘ষ্ট্রাটেজিক লিডারশীপ’ প্রোগ্রাম সম্পন্ন করেন।

বর্ণিল কর্মময় জীবনে মেজর জেনারেল পাশা বিভিন্ন গুরুত্বপুর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ দূতাবাসে ২০১৩ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত ডিফেন্স এ্যাডভাইজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ০২টি লোকেটিং ব্যাটারী, ০১টি ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি, ০১টি মিডিয়াম রেজিমেন্ট আর্টিলারি, ০১টি ইউএন কন্টিনজেন্ট, ০১টি বিজিবি ব্যাটালিয়ন এবং ০২টি আর্টিলারি ব্রিগেড কমান্ড করেছেন। স্টাফ অফিসার হিসেবে তিনি সেনাসদরে সামরিক সচিবের শাখায় এবং কর্ণেল জিএস হিসেবে ডিজিএফআই এ কর্মরত ছিলেন। তিনি স্কুল অব ইনফেন্ট্রী এন্ড ট্যাকটিক্স -এ রণকৌশল এর প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি জাতিসংঘ মিশনে মরক্কোতে সামরিক পর্যবেক্ষক (১৯৯৭-১৯৯৮) এবং আইভরিকোষ্টে ম্যাকানাইজড ইনফেন্ট্রী কন্টিজেন্টের কন্টিনজেন্ট কমান্ডারের দায়িত্ব সেপ্টেম্বর ২০০৯ থেকে ফেব্রয়ারি ২০১১ পর্যন্ত সফলতার সাথে সম্পন্ন করেন। তিনি বৈদেশিক প্রশিক্ষণ, শিক্ষা সফর ও ভ্রমন উপলক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, চীনসহ প্রায় ২০টি দেশ ভ্রমন করেন। মেজর জেনারেল শেখ পাশা হাবিব উদ্দিন ও বেগম ফরিদা ইয়াসমিন সুখী দম্পতি এবং ০৩ (তিন) কন্যা সন্তানের গর্বিত জনক-জননী।


Share with :

Facebook Facebook